বরষার প্রথম দিনে

জুন ১৭, ২০২৩ ০ comments deshgrampost Categories সাহিত্য ও সংস্কৃতি

জ্যৈষ্ঠ শেষ হলো, বরষার প্রথম দিন আজ। মানুষের মতোই প্রকৃতিও কাঁদে বলেই কি বর্ষা আসে? নাকি ভিজিয়ে দিতে, শীতল করতে আসে তপ্ত ধরাকে! সম্প্রতি যে অসহ্য গরম সহ্য করেছে দেশবাসী, প্রথমে বৃষ্টির ধারণা এবং পরে বৃষ্টি এসে হাওয়ায় যে শীতলতা ছড়িয়েছে তারপরই না হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম আমরা। ফলে প্রকৃতির কান্নার মতোই বর্ষা স্বস্তিরও নাম। নদীমাতৃক বাংলাদেশে বর্ষা তথা আষাঢ়-শ্রাবণের যে রূপ, তার তো আর তুলনা নেই। বর্ষা নিয়ে কবি-সাহিত্যিকরা লিখেছেন অগণিত গান ও কবিতা। আবেগে আপ্লুত হয়ে বিশ্বকবি বর্ষার প্রতি ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে লিখেছেন, ‘আজি ঝরো ঝরো মুখর বাদর দিনে, জানিনে জানিনে কিছুতে কেন যে মন লাগে না।’

কিছুতে মন না লাগা রবীন্দ্রনাথ এই বাংলার নদী পদ্মার বুকে পদ্মাবোটে বসে বর্ষার রূপমুগ্ধ হয়েছেন, লিখেছেন ‘সোনার তরী’র মতো অসামান্য কবিতা। লিখেছেন ‘নীল নবঘনে আষাঢ় গগনে তিল ঠাঁই আর নাহিরে’। বাংলাদেশের বর্ষার রূপ বর্ণনা করেই লিখেছেন “আকাশ আঁধার, বেলা বেশি আর নাহি রে।/ ঝরো-ঝরো ধারে ভিজিবে নিচোল,/ ঘাটে যেতে পথ হয়েছে পিছল/ ওই বেণুবন দোলে ঘন ঘন/ পথপাশে দেখ্ চাহি রে॥/ শুধু রবীন্দ্রনাথ কেন, এ সময়ের কবি মারজুক রাসেলও লিখেছেন ‘বৃষ্টি তোমার পায়ে ধরি, অন্য কোথাও পড়ো, আমাদের এই সকাল দুপুর কেন নষ্ট করো’।

আকাশভরা রবীন্দ্রনাথের দেশে নীল গগনে কালো মেঘের চোখ রাঙানিতে বৃষ্টির রাজত্ব শুরু হওয়ার কথা থাকলেও এবার সেভাবে এখনো অঝোরধারায় আকাশ কাঁদিয়ে বর্ষারানী তার আগমনের বার্তা পৌঁছে দেয়নি ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইলে। তবে মাঝেমধ্যেই আকাশ আঁধার করে নতিজা দেখানো শুরু করেছে। এখন চলতি পথে ছাতা কিংবা বর্ষাতি নিয়ে বের হতেই হবে সচেতন কাউকে, যিনি হুট করে বৃষ্টিতে ভিজতে চান না।

বর্ষা আমাদের জন্য অপরিহার্য এক ঋতু। বৃষ্টি না হলে শস্যাদি জন্মাবে না, বেড়ে উঠবে না প্রাণ। বৃষ্টির অভাবে মাটি যখন অনুর্বর হয়ে যায় তখন বর্ষা এসে তা উর্বর করে। আমাদের নদী, মাঠ, ঘাটের দেশ বর্ষায় ভরে ওঠে সবুজে-শ্যামলে। শুধু কি তাই, বর্ষার আগমনে গাছে শোভাবর্ধন করে কদম ফুল। মেঘের গুড়ুম গুড়ুম গর্জনে ময়ূর নাচে পেখম তুলে।

ঋতুবৈচিত্র্যের ষড়ঋতুর দেশের দ্বিতীয় ঋতু বর্ষা। বরষার প্রথম দিনে, ঘন কালো মেঘ দেখে, আনন্দে যদি কাঁপে তোমার হৃদয়, সেদিন তাহার সাথে করো পরিচয়, কাছে কাছে থেকেও যে কভু কাছে নয় হুমায়ূন আহমেদের কথায় মকসুদ জামিল মিন্টুর সুর করা এ গান গাইতে গাইতে হৃদয়ের কথা জানাতে না পারা প্রেমিকার কথা ভাবেনি আর কোন প্রেমিক! বরষা তাই প্রেমেরও মোক্ষম ঋতু কবি আবুল হাসান তো লিখেছিলেনই, বৃষ্টি চিহ্নিত ভালোবাসায়, বৃষ্টি হলেই না সেরকম সারা দিন হৃদয়ের অক্ষরভরা উপন্যাস পড়া যায়।

এমন রোমান্টিক বৃষ্টির কারণে বিপদেরও কিন্তু শেষ নেই। সবচেয়ে বড় বিপদ নিম্ন আয়ের মানুষদের। প্রতিদিন কাজে যাওয়া ও ফেরার বাইরে দিনমজুরদের কাজও যাবে কমে ভয়ানকভাবে, ফলে চুরি-ছিনতাইয়ের মতো অপরাধ বাড়বে, কাজ বাড়বে পুলিশ বিভাগের। আর বর্ষা এলেই দেখবেন কাজকর্ম বেড়ে যায় আমাদের সড়ক বিভাগের। মানে রাস্তার কাটাকুটি দুর্ভোগও বাড়বে এ বর্ষায়। সীমিত আয়ের মানুষদের কড়ায়-গণ্ডায় হিসাব করা টাকায় ভাগ বসাবে হুট করে বৃষ্টি এড়াতে ব্যবহার করা যানবাহন। সিএনজিচালিত অটোরিকশা, গাড়ির বিলাস যারা নিতে পারেন না, তারা অপেক্ষা করবেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা কখন বৃষ্টি ধরে আসবে, কখন বাড়ি পৌঁছে পরিবারের সান্নিধ্যে যাবে সারা দিন কামলা খাটা মানুষ।

বৃষ্টিতে মোহনীয় হয়ে উঠুক পুরো বর্ষা আষাঢ় ও শ্রাবণ। আবেগে ভরে বর্ষা আমাদের মনকে স্নিগ্ধ করে তোলে। পুরাতন জঞ্জাল ধুয়েমুছে আমরাও জেগে উঠি প্রাণচাঞ্চল্যে।

আহারে বর্ষা, বৃক্ষ ফসলের জন্য ভয়াবহ অথচ প্রয়োজনীয় বর্ষার এই জল, কিন্তু নগরে যে বৃষ্টি হবে, যে নগরে আয়-ব্যয়ের এত বৈষম্য, এত পার্থক্য সে নগরের বৃষ্টির রঙ কি কখনো কখনো হয়ে উঠবে না লাল? সেই বৃষ্টির রঙ কি আমরা ক্রমাগত প্রতিদিন মেনে নিয়ে বৃষ্টিতে ভিজতে থাকব?